Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / এবার ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে কবুতরকান্ড!

এবার ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে কবুতরকান্ড!

একজন পাকিস্তানি নাগরিক ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তার আটক করা কবুতরটি ফিরিয়ে দেয়ার জন্য। এই কবুতরটি এখন ভারতে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে আটক করে রাখা হয়েছে। কবুতরটির মালিক পাকিস্তানি নাগরিক হাবিবুল্লাহ থাকেন ভারত সীমান্ত থেকে মাত্র চার কিলোমিটার দূরে পাকিস্তান শাসিত কাশ্মিরের এক গ্রামে।

তিনি বলছেন ঈদ উৎসব উদযাপনের সময় তিনি কবুতরটি ছেড়ে দিয়েছিলেন। ভারতের পুলিশ বলছে কবুতরের পায়ে একটি রিং পরানো আছে এবং সেখানে একটি সংকেত লেখা আছে। তারা এই সংকেতের অর্থ উদ্ধার করার চেষ্টা করছে।

কিন্তু কবুতরটির মালিক পাকিস্তানি নাগরিক হাবিবুল্লা বলছেন এই কোড বা সংকেত আসলে তার মোবাইল ফোন নম্বর। পাকিস্তানের ইংরেজি সংবাদপত্র ডন বলছে হাবিবুল্লাহর আরও প্রায় এক ডজন কবুতর রয়েছে।

ডন পত্রিকাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে হাবিবুল্লাহ জানিয়েছেন তার কবুতরটি আসলে শান্তির প্রতীক এবং ভারতের উচিত নির্দোষ একটি পাখিকে এভাবে দোষী বানানোর কাজ বন্ধ করা। গত সোমবার ভারত শাসিত কাশ্মিরের একটি গ্রামের লোকজন এই কবুতরটি আটক করে

এবং এরপর তারা এটি পুলিশের হাতে তুলে দেয়। কাশ্মির অঞ্চলটি নিয়ে ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্যে মারাত্মক বিরোধ রয়েছে। দুটি দেশই এই অঞ্চলটিকে নিজেদের বলে দাবি করে এবং কাশ্মীরের দখল নিয়ে দুই দেশের মধ্যে বেশ কয়েকটি যুদ্ধ হয়েছে।

পাকিস্তান থেকে ভারতে উড়ে যাওয়া কোন কবুতর নিয়ে এরকম সমস্যা এটাই প্রথম নয়। ২০১৫ সালের মে মাসে ভারতে একটি সাদা কবুতরকে আটক করা হয়েছিল সীমান্তের কাছে। ১৪ বছর বয়সী একটি ছেলে এই কবুতরটিকে খুঁজে পায়। একইভাবে ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে আরেকটি কবুতরকে আটক করা হয় ভারতে।

এই কবুতরটির সাথে পাওয়া যায় একটি চিরক যাতে নাকি ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীকে হুমকি দেয়া হয়েছিল। ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্যে বৈরিতার ইতিহাস খুবই পুরনো। দুই দেশের মধ্যে সর্বশেষ সর্বাত্মক যুদ্ধ হয়েছিল ১৯৭১ সালে। সূত্র: বিবিসি

Check Also

প্রশ্ন তারেক রহমানের: জনগণের কাছে কি রাষ্ট্রের মালিকানা আছে, নাকি জনগণ এখন নিজ দেশেই পরাধীন?

বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বলেছেন, জাতি হিসেবে হয়তো অনেক অপ্রাপ্তি রয়েছে তবে আমাদের চরম …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *