Breaking News

কি অমানবিকতা:করোনা সন্দেহে শ্বশুরবাড়ি ও বাবার বাড়িতে ঠাঁই হলো না যুবতীর

সাতক্ষীরার কালীগঞ্জে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে শ্বশুরবাড়ি ও বাবার বাড়ি থেকে বিতাড়িত করা হয়েছে মৌসুমী আক্তার (২০) নামে এক যুবতীকে। জানা যায়, ওই যুবতীর শ্বশুরবাড়ি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায়। কয়েকদিন পূর্বে জ্বরে আক্রান্ত হন মৌসুমী। করোনা সন্দেহে জবরদস্তি করে শ্বশুরবাড়ির লোকজন বাড়ি থেকে বের করে দেন।

অনেক কষ্টে এক আত্মীয়ের সহযোগিতায় ১২ মে সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার কুশলিয়া ইউনিয়নের বাজারগ্রামে অবস্থিত বাবার বাড়িতে পৌঁছান। সেখানেও ঠাঁই হয়নি তার। অতি উৎসাহী প্রতিবেশীদের কারণে বিপত্তি শুরু হয়। বাধ্য হয়ে ওই তরুণী আশ্রয় নেন সাবেক এমপি এইচএম গোলাম রেজার নির্মাণাধীন বাড়ির একটি কক্ষে।

কিন্তু সেখান থেকে ১৩ মে সন্ধ্যায় স্থানীয় প্রভাবশালী মহলের ইন্ধনে এলাকাবাসী জোরপূর্বক তাকে বের করে দেন। অসহায় ওই তরুণী চলে যান পার্শ্ববর্তী মথুরেশপুর ইউনিয়নের দেয়া গ্রামে অবস্থিত দাদার বাড়িতে। সেখানেও থাকতে বাধা দেয় এলাকাবাসী। একদিকে জ্বরের কারণে ক্লান্ত শরীর,

অপরদিকে একের পর এক আশ্রয় হারানোর বেদনায় মনের কষ্টে ওই তরুণী বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা পরিষদ মাঠের এক কোণায় বসে কান্নাকাটি করছিলেন। ঘটনাটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক রাসেলের নজরে আসে। তিনি প্রচণ্ড জ্বরে আক্রান্ত ওই তরুণীর কাছে বিস্তারিত ঘটনা শোনার পর বিস্মিত হয়ে যান।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার তত্ত্বাবধানে তাকে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশনে আছেন। তরুণীর খালা মোমেনা খাতুন (৪০) গত কয়েকদিনে ঘটে যাওয়া মর্মান্তিক ঘটনার কথা জানান। যারা অসুস্থ একজন মানুষের সাথে এমন অমানবিক আচরণ করেছেন তাদের শাস্তি দাবি করেন তিনি।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: শেখ তৈয়েবুর রহমান জানান, মৌসুমী আক্তার নামে ওই তরুণী স্বাভাবিক জ্বরে আক্রান্ত বলেই মনে হচ্ছে। প্রথমে তার শরীরে প্রচণ্ড জ্বর ছিল। তাকে আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। অল্প সময়ের ব্যবধানে তিনি এখন অনেকটা সুস্থ।

তারপরও ওই নারীর নমুন সংগ্রহ করে পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক রাসেল বলেন, অতি উৎসাহী কিছু মানুষ মৌসুমী আক্তারের সাথে অত্যন্ত অমানবিক আচরণ করা হয়েছে।

যারা এ ঘটনার সাথে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি। বিড়ম্বনার শিকার তরুণী গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ার আনিসুর রহমানের স্ত্রী এবং সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার বাজারগ্রামের মোহাম্মদ আলী গাজীর মেয়ে।

Check Also

Amnesty and HRW urge Bangladesh to immediate release Mir Ahmad, Amaan Azmi

Two human rights organizations – Amnesty International and Human Rights Watch – have urged Bangladesh …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *