Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / করোনা ভাইরাস নিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমত্রীর ব্যাতিক্রমী উদ্যেগ।

করোনা ভাইরাস নিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমত্রীর ব্যাতিক্রমী উদ্যেগ।

গরিব মানুষদের কথা চিন্তা করে পাকিস্তানকে পুরো লকডাউন করবেন না বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। নাগরিকদের আতঙ্কিত না হয়ে নিজেদের কোয়ারেন্টিনে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। রোববার জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে ইমরান খান বলেন, ‘পুরো লকডাউনের ধকল সামলে উঠতে পারবে না পাকিস্তান। কারণ দেশের ২৫ শতাংশ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করেন। যদি আমি পুরো পাকিস্তান লকডাউন করি, তাহলে তাদের কী হবে?’

লকডাউনের ব্যাখ্যায় পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘লকডাউন হল কারফিউ জারি থাকা এবং মানুষের বাইরে চলাচলে কড়াকড়ি থাকে। রাস্তায় থাকে সামরিক বাহিনীর সদস্য। কয়েক দিনের মধ্যেই ৯০ শতাংশ মানুষ করোনাভাইরাস থেকে সুস্থ হয়ে যায়। ভাইরাস যদি ভয়াবহভাবে ছড়ায়, তাহলে বৃদ্ধ ও দুর্বল মানুষ সবচেয়ে বেশি ভুগেন এবং তাদেরই হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়।’

পাকিস্তানে এ পর্যন্ত ৭১৪ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আর মারা গেছেন চারজন। সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতি সিন্ধু প্রদেশে। এখানে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ২৯২ জন। রোববার নতুন ৪১ জন আক্রান্ত হওয়ার পর এ প্রদেশটি লকডাউন করা হয়েছে। ইমরান খান বলেন, ‘এখন আমরা সব ধরনের জনসমাবেশ বন্ধ করেছি। পুরো দেশে লকডাউন আরোপের সিদ্ধান্ত থেকে আমরা এক কদম পিছিয়ে আছি।

এর পেছনে কারণও আছে। আমাদের পরিস্থিতি ইতালির মতো দেশের পরিস্থিতির সঙ্গে মেলালে চলবে না। তাদের মাথাপিছু আয় ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতি আমাদের চেয়ে অনেক ভালো।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা যদি দেশব্যাপী লকডাউন করি, তাহলে দিনমজুর ও শ্রমিকরা সমস্যায় পড়বে। লকডাউনের পরবর্তী সপ্তাহগুলোয় তারা কী করবে?’

যদি সাধারণ মানুষ গণজমায়েত এড়িয়ে যান, বিবাহ বন্ধ করেন এবং বাড়িতে অবস্থান করেন তাহলে ভাইরাস প্রতিরোধ করা সহজ হবে- যোগ করেন ইমরান খান। ২০০৫ সালের ভূমিকম্প ও ২০১০ সালের বন্যা মোকাবেলায় পাকিস্তানের সফলতার কথা উল্লেখ করে ইমরান খান বলেন, ‘আমি আমার জাতি নিয়ে গর্বিত।

সাহসিকতার সঙ্গে আমরা আমাদের সমস্যা ও সংকট মোকাবেলা করেছি। পাকিস্তান বরাবরই একত্রে লড়াই করেছে। আমি আমার দেশকে ২০০৫ সালের ভূমিকম্প ও ২০১০ সালের বন্যার বিরুদ্ধে লড়াই করতে দেখেছি। সূত্র: ডন উর্দূ

Check Also

ট্রাম্প কে নিয়ে এরদোগানের আবেগঘন বার্তা, জেনেনিন কি রয়েছে সেই বার্তায়

একদিকে নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলে যুদ্ধ বন্ধ এবং কার্যত এ যুদ্ধে বিজয়ী হওয়ায় আজারবাইজানের পাশাপাশি অভিনন্দনে ভাসছেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *