Breaking News
Home / বিশেষ সংবাদ / ৬ ছাত্রী উত্যক্তের মামলায় আসামি ছাত্রলীগের ১‌০ জন

৬ ছাত্রী উত্যক্তের মামলায় আসামি ছাত্রলীগের ১‌০ জন

শরীয়তপুরে ৬ জন ছাত্রীকে উত্যক্ত করার ঘটনায় ১০ জন বখাটের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। গোসাইরহাট থানায় দায়ের করা মামলার আসামি তালিকায় রয়েছে দুই ছাত্রলীগ নেতাসহ দশজন। তাদের মধ্যে বৃহস্পতিবার দুপুরে আরিফুল ইসলাম (২১) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অভিযুক্তরা সকলেই ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয়।

সূত্র জানায়, ছাত্রী উত্যক্তের ঘটনায় অন্যতম আসামি গোসাইরহাট উপজেলার সরকারি সামসুর রহমান কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়ামিন শিকদার ও ছাত্রলীগ নেতা মারুফ শাহরিয়ার। মূলত তাদের নেতৃত্বে ৬ ছাত্রীকে ইভটিজিংয়ের পাশপাশি হুমকিদানের ঘটনা ঘটে। ঘটনার শিকার এক কলেজ ছাত্রী বুধবার রাতে ইয়ামিন শিকদারসহ ১০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। তারই সূত্রে বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ আরিফুল নামে এক বখাটেকে গ্রেপ্তার করে। অন্যরা পলাতক। গ্রেপ্তারকৃত আরিফুল কলেজটির রাস্ট্রবিজ্ঞান চতুর্থ বর্ষের ছাত্র। ছাত্রী উত্যক্তের এসব ঘটনায় মঙ্গলবার কলেজ অধ্যক্ষ বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন ছাত্রীরা। সে অভিযোগ তদন্তে কমিটি গঠন করা হয়।

গোসাইরহাট থানার ওসি মোল্লা সোহেব আলী জানান, মামলার আসামিরা সোমবার সরকারি সামসুর রহমান কলেজের কয়েকজন ছাত্রীকে চারদিক থেকে ঘিরে ধরে। তারা বিভিন্ন ধরনের অঙ্গভঙ্গি করে এবং ছাত্রীদের আপত্তিকর প্রস্তাব দেয়। এক ছাত্রীর ওড়না ধরে টান দেয় বখাটেরা। ছাত্রীরা এ ঘটনার প্রতিবাদ জানালে বোমা মারার হুমকি দেয় বখাটেরা। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় এক ছাত্রী মামলা দায়ের করেন।

কলেজের অধ্যক্ষ মো. ফজলুল হক মোল্লা বলেন, ‘৬ ছাত্রীকে উত্যক্তের ঘটনায় বুধবার পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। দুই কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার দুপুরে তদন্ত কমিটি যে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে তাতে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।’

গোসাইরহাট উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান আজমল হোসেন নয়ন বলেন, ‘ছাত্রী উত্যক্তের অভিযোগ সাংগঠনিকভাবে তদন্ত করা হবে। যদি ইয়ামিন সিকদার জড়িত থাকে, তাহলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।’

সূত্র জানায়, গত সোমবার সরকারি সামসুর রহমান কলেজে সাংষ্কৃতিক ও ক্রীড়া অনুষ্ঠান চলছিল। দুপুরে ক্যান্টিনের সামনে আম গাছের নীচে কয়েকজন বখাটে আড্ডা দিচ্ছিল। ক্যান্টিনে নাস্তা খেতে যাওয়া ছাত্রীদের পথরোধ করে কয়েকজন। ইয়ামিন শিকদার ,মারুফ শাহরিয়ারসহ কয়েকজন ছাত্রীদের প্রেমসহ শারীরিক সম্পর্কের প্রস্তাব দেয়। এক ছাত্রীর ওড়না ধরে টান দেয়ার পাশাপাশি ঘটনার ভিডিও মোবাইল ফোনে ধারন করে বখাটেরা। ছাত্রীরা প্রতিবাদ করলে তাদের বোমা মারার হুমকি দেয়া হয়।

অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা ইয়ামিন কলেজটির রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। মারুফ কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সদস্য এবং এবং দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র।

Check Also

এক নারীর মিথ্যা জবানবন্দিতেই নিঃশেষ পরিবারটি

নারায়ণগঞ্জে অপহরণ মামলায় তথাকথিত ‘খুন হওয়ার’ ৬ বছর পর ফিরে এসেছেন মামুন নামে এক ভিকটিম। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *