Breaking News

তিন মিনিটেই কুড়িগ্রাম আদালত থেকে মোটরসাইকেল চুরি করল পুলিশ সদস্য!

কুড়িগ্রাম চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের এক কর্মচারীর মোটরসাইকেল চুরি করার ঘটনায় তারিকুল ইসলাম (২৪) নামে এক পুলিশ কনস্টেবলকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত চত্বরে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা অবস্থায় মোটরসাইকেলটি চুরি করেন কনস্টেবল তরিকুল। তাকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

রক্ষকই ভক্ষকের ভূমিকায় থাকার ঘটনাটি বুধবার ফাঁস হয়ে গেলে আদালতপাড়ায় ও পুলিশ প্রশাসনে তোলপাড় শুরু হয়।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকালে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের প্রসেস সার্ভার পদের কর্মচারী আল-আমিন আহমেদ তাড়াহুড়ো করে মোটরসাইকেলের মধ্যে চাবি রেখে বায়োমেট্রিক হাজিরা দিতে যান। এতে মোট ২-৩ মিনিট সময় লাগে। তাৎক্ষণিকভাবে ফিরে এসে তার মোটরসাইকেলটি সেখানে দেখতে না পেয়ে চারদিকে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন।

পরে সিসি ক্যামেরায় দেখা যায় কোর্ট চত্বরের দায়িত্বে থাকা কনস্টেবল তারিকুল ইসলাম মোটরসাইকেলটি চালু করে সটকে পরছেন। বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ও পুলিশ প্রশাসনকে জানানো হয়।

বিষয়টি গোপন রাখার চেষ্টা চলে। অবশেষে সন্ধ্যায় আল-আমিন আহমেদ বাদী হয়ে কুড়িগ্রাম সদর থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে,মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগে গ্রেফতারকৃত পুলিশ কনস্টেবল তারিকুল ইসলাম রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার তরফবাহাদ্দি গ্রামের ইলিয়াস মিয়ার পুত্র।

কুড়িগ্রামের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এসএম আব্রাহাম লিংকন জানান, কোর্ট চত্বরে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা অবস্থায় এমন ঘটনা সংঘটিত করা সত্যিই দুঃখজনক। এতে ব্যক্তির কলঙ্ক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে যায়। পুলিশ সুপার দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ায় মর্যাদা রক্ষা পেয়েছে। তাকে সাধুবাদ জানাচ্ছি।

কুড়িগ্রাম সদর থানার ওসি মাহফুজার রহমান জানান, পুলিশ সুপারের নির্দেশে ঘটনার পরপরই অভিযান চালিয়ে মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করে বাদীর জিম্মায় দেয়া হয়েছে। অভিযুক্ত তারিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা রেকর্ড করে তাকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।

Check Also

গুম হওয়া ব্যক্তিদের পরিবারের নিকট ফেরত দেওয়ার আহবান

৩০ আগস্ট আন্তর্জাতিক গুম দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর ডা. শফিকুর রহমান ২৯ আগস্ট …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *