Breaking News

মানবদে’হেই রয়েছে সব ধরনের ক্যা’নসারের ‘ওষুধ’!

বিজ্ঞানীরা বলছেন, মানুষের শ’রী’রের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার নতুন আবিষ্কৃত একটা অংশ সব ধরনের ক্যা’নসা’রের চিকিৎসা করতে পারে। কার্ডিফ ইউনিভার্সিটির একটি গবেষক দল একটি পদ্ধতি আবিষ্কার করেছে যা প্রোস্টেট, স্তন, ফুসফুস এবং অন্যান্য ক্যা’নসার সারিয়ে তুলতে পারে।

তাদের এই গবেষণা নেচার ইমি’উনোলজি ম্যাগাজিনে প্রকাশ করা হয়েছে। গবেষকরা বলছেন যদিও এটা এখনো কোনো রোগীর শ’রী’রে পরীক্ষা করা হয় নি কিন্তু সফল হওয়ার বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন এই কাজ এখনো প্রাথমিক ধাপে রয়েছে কিন্তু এটা খুব উত্তে’জনাকর।

গবেষকরা কী খুঁজে পেয়েছেন?আমাদের শ’রী’রের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা আমাদের শ’রী’রে রোগ সংক্রম’ণের বিরুদ্ধে স্বাভাবিকভাবে কাজ করে। এটা ক্যা’ন্সা’রের কোষ বা সেল কেও আক্রমণ করে। বিজ্ঞানীরা খুঁজেছে ‘অস্বাভাবিক’ এবং পূর্বে অনাবিষ্কৃত পন্থা যেটা দিয়ে রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা স্বাভাবিকভাবে টিউমারের উপর আক্রমণ করে

তারা বলছে, মানুষের রক্তে আছে একটি টি-সেল। এটা একটা রোগ প্রতি’রোধক সেল বা কোষ যা দিয়ে শ’রী’র পরীক্ষা করে প’রিমাপ করতে পারে যে কোনো ঝুঁকি আছে কিনা যেটা দুর করা দরকার। পার্থক্য হল এই কোষটি বৃহৎ আকারে ক্যা’ন্সারে’র বি’রুদ্ধে কাজ করতে পারে।

গবেষক অধ্যাপক অ্যানড্রু সিওয়েল বিবিসিকে বলেছেন ‘এটাতে সব রো’গীকে চিকিৎসা করার একটা সুযোগ রয়েছে’। তিনি আরো বলেন ‘আগে কেউ বিশ্বাস করেনি এটা সম্ভব হতে পারে। একটা কোষ দিয়ে সব ক্যা’ন্সা’রের চিকিৎসার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দিয়েছে। যেটাকে ইংরেজিতে বলে ‘ওয়ান সাইজ ফিটস্‌ অল’ (one-size-fits-all)।

কীভাবে এটা কাজ করে?টি-সেলের ‘রিসেপ্টর’ আছে। রি’সেপ্টর হল একটা সেল বা কোষ যেটা আলো, তাপ বা অন্যান্য উদ্দীপক বস্তুর প্রতিক্রিয়া পাঠাতে পারে।

এর ফলে তারা রা’সা’য়নিকের মাত্রাটা দেখতে পারে।কার্ডিফের এই গবেষক দলটি র’ক্তে’র এই টি-সেল এবং তার রিসেপ্টর আ’বিষ্কার করেছে যেটা দিয়ে পরীক্ষাগারে বৃহৎ পরিসরে ক্যা’ন্সা’রের সেল আবিষ্কার করা এবং ধ্বং’স করা যেতে পারে। এসব ক্যা’ন্সা’রের মধ্যে রয়েছে ফু’সফুস, ত্বক, রক্ত, কোলন, স্তন, হাড়, প্রোস্টেট, ওভারি, কিডনি এবং জরা’য়ুর ক্যা’ন্সার।

জটিল হলেও এটা স্বাভা’বিক টিস্যুকে প্রভাবিত করবেনা। তবে আসলেই এটা ঠিক কীভাবে কাজ করবে সেটা এখনো প’রীক্ষা-নিরীক্ষার বিষয়। এই নির্দিষ্ট টি-সেলের রে’সেপ্টর এমআরওয়ান নামে একটা অণুর সাথে মিথস্ক্রি’য়া করানো হয়েছে যেটা মানুষের শ’রী’রের প্রত্যেক সেলের উপরি’ভাগে থাকে।

রিসার্চ ফেলো গ্যারি ডলটন বিবিসিকে বলেছেন ‘আমরাই প্রথম যারা বর্ণনা করছি একটি টি-সেল যেটা ক্যান্সার সেলের মধ্যে এমআরওয়ান খুঁজে পায়। এটা এর আগে করা হয়নি। এটা এবারই প্রথম’।

এটা কেন তাৎপর্যপূর্ণ? টি-সেল থে’রাপি আগে থেকেই রয়েছে। তবে ক্যা’ন্সার প্রতি’রোধক থে’রাপির উন্নয়ন এই ক্ষেত্রে অন্য’তম উত্তে’জনাক’র অ’গ্রগতি। অতি বিখ্যাত উদাহরণ হল সিএআর-টি। এটা হল একটা জীবিত ওষুধ যেটা রো’গির টি-সেল খুঁজে বের করবে এবং ধ্বং’স করবে।

সিএআর-টি’র একটা নাটকীয় ফ’লাফল হতে পারে, যার ফলে যে রো’গী মৃ’ত্যু’র দিকে ধাবিত হতে পারতো তাকে আগেই পুরো’পুরি সারিয়ে তুলবে। যাইহোক, এর লক্ষ্য ছিল খুবই নি’র্দিষ্ট এবং যেটা সীমিত সংখ্যার ক্যা’ন্সা’র ক্ষেত্রে কাজে লাগে।

অন্যদিকে টি-সেলকে প্রশিক্ষণ দেয়ার একটা পরি’ষ্কার লক্ষ্য আছে যাতে ক্যা’ন্সা’র ধরতে পারে। এবং এটা ব্লাড ক্যা’ন্সার বা লিউকেমিয়াতে যতটা সফ’লতা পেয়েছে টিউমার থেকে যে ক্যা’ন্সার হয় সেটাতে সফলতা আনতে ততটাই হিমশিম খাচ্ছে।

গবেষকরা বলছেন তাদের টি-সেল রিসেপ্টর সার্ব’জনীন ক্যা’ন্সারে’র চিকিৎসার প্রতিনিধিত্ব করতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা কী বলছেন?সুইজারল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অব বাসিলের দুইজন গবেষক লুসিয়া মোরি এবং জিনারো ডি লিভেরো বলছেন এই গবেষণার ‘বড় সম্ভাবনা’ আছে। কিন্তু এটা এতটাই প্রাথমিক অবস্থায় রয়েছে যে এটা সব ক্যা’ন্সা’রে কাজ করবে সেটা এখনি বলা যাচ্ছে না।

দ্যা ইউনিভার্সিটি অব ম্যানচেস্টার এর অধ্যাপক ড্যানিয়েল ডেভিস বলছেন ‘এই মুহূর্তে এটা খুব প্রাথমিক গবেষণা। এবং রো’গিদের জন্য সঠিক ওষুধ তৈরির কাছাকাছি পর্যায়ে নেই।’ সূত্র: বিবিসি বাংলা

Check Also

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনাভাইরাসের টিকা বয়স্ক মানুষের শরীরে করোনা প্রতিরোধে ৮০ ভাগ কার্যকর।

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনাভাইরাসের টিকা বয়স্ক মানুষের শরীরে করোনা প্রতিরোধে ৮০ ভাগ কার্যকর। আর গুরুতর অসুস্থতা বা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *