Breaking News

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রিজভীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল

বিএনপি চেয়ারপার্সন, খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা ও সাজা প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে। সোমবার দুপুর ১২টায় ধানমন্ডির ২৭নং রোডের মোড় থেকে শুরু হয়ে স্টার কাবাবের মোড়ে গিয়ে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। মিছিলে যুবদল, ছাত্রদলের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী অংশগ্রহণ করেন।

মিছিল শেষে এক পথসভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বিএনপির রিজভী বলেন, ষড়যন্ত্র ও জনগণের সঙ্গে প্রতারণার মাধ্যমে ২০০৯ সালে রাষ্ট্রক্ষমতায় আসার পর থেকে বর্তমান শাসকগোষ্ঠী গণতন্ত্রকে সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস করার কর্মসূচি হাতে নেয়। বিগত ১২ বছরে শুধু গণতন্ত্রই ধ্বংস নয়, স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকেও দুর্বল করা হয়েছে চরমভাবে। আওয়ামী লীগ ঠিকই উপলব্ধি করেছিল যে, প্রতারণার জবাব দিতে দেশের মানুষ পরবর্তী নির্বাচনে আর কখনোই আওয়ামী লীগকে সমর্থন করবে না। তাই তারা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন ও স্বচ্ছ ভোটকে নির্বাসনে পাঠিয়েছে ফ্যাসিবাদী শাসনের বিষাক্ত ছোবলে।

রিজভী বলেন, ফ্যাসিবাদের করাল গ্রাসে বিচার বিভাগ, প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে হাতের মুঠোয় নিয়ে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস কায়েম করে দেশের জনগণকে বন্দি করে রেখেছেন সরকারপ্রধান। আর এই ভয়াল সন্ত্রাসের নির্মম শিকার করা হয়ে খালেদা জিয়াকে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে বন্দি করে। বেগম জিয়ার ন্যায্য জামিন পাবার অধিকারকেই কেবল বাধাগ্রস্ত নয়, বরং শারীরিকভাবে ভীষণ অসুস্থ চারবারের সাবেক একজন প্রধানমন্ত্রীকে সুচিকিৎসার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করে তার জীবনবিনাশে নিষ্ঠুরতা প্রদর্শন করে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়া বেশ কয়েকদিন ধরে বমি করছেন। তিনি খেতে পারছেন না, তার অসুস্থতা আগের চেয়ে অনেকগুণ বেড়েছে। এমনকি বেগম জিয়ার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকরাও প্রকারান্তরে স্বীকার করেছেন দেশনেত্রীর গুরুতর অসুস্থতার কথা। তার স্বাস্থ্যগত অবস্থা চরম অবনতিশীল। বেগম জিয়া গুরুতর অসুস্থ হলেও তার শারীরিক অবস্থা গোপন করছে সরকার।

খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করতে জাতীয়তাবাদী শক্তির নেতৃত্বে দেশের গণতন্ত্রপ্রিয় জনতা এখন চূড়ান্ত প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। যে কোনো মূহুর্তে জনগণের বাঁধভাঙ্গা স্রোতে বর্তমান স্বৈরশাহীর মূলোৎপাটন ঘটিয়ে বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবে। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বলতে চাই-আর নয়, বেগম জিয়ার ওপর যথেষ্ট অমানবিক আচরণ করেছেন, এবার ক্ষান্ত হউন, তাকে নিঃশর্ত মুক্তি দিয়ে জনতার ক্রোধ থেকে বাঁচুন। আমি আবারও অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং তাকে তার পছন্দের হাসপাতালে সুচিকিৎসার সুযোগ দানের দাবি জানাচ্ছি।যুগান্তরের সৌজন্যে

Check Also

লাকসামে ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীদের উপর আওয়ামী সন্ত্রাসী হামলা ও পুলিশের মিথ্যা মামলা এবং গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

কুমিল্লা লাকসামে শিবির-জামায়াত সমর্থিত লোকজনের ব্যবসা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বাড়ি-ঘরে ব্যাপক ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *