Breaking News
Home / মতামত / কেলেঙ্কারিতে বিব্রত ছিল প্রশাসন

কেলেঙ্কারিতে বিব্রত ছিল প্রশাসন

৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনে সরকারের এজেন্ডা সফলভাবে বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে বছর শুরু করে প্রশাসনের কর্মকর্তারা। কিন্তু নানা সমালোচনা আর কেলেঙ্কারিতে তাদের জন্য বিব্রতকর ছিল ২০১৯ সাল। বালিশ কেলেঙ্কারিসহ নানা দুর্নীতিও গণমাধ্যমে উঠে আসে এ বছরেই। মাঠপর্যায়ে কর্মকর্তাদের নারী কেলেঙ্কারিসহ নানা নেতিবাচক ঘটনায় সারা বছর প্রশাসনে ছিল অস্বস্তি। কর্মকর্তাদের তুষ্ট করতে দুই দফা বড় ধরনের পদোন্নতিও দেয়া হয় প্রশাসনে।

যদিও এসব পদোন্নতিতে বঞ্চিত করা হয় অপেক্ষাকৃত মেধাবী ও সিনিয়র কর্মকর্তাদের। এতে হতাশা বাড়ে বঞ্চিত কর্মকর্তাদের। ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর দেশের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। পর্যবেক্ষকদের মতে, এটি কোনো নির্বাচন ছিল না। ছিল প্রহসন। এতে নির্বাচন কমিশন যে যথাযথ ভূমিকা পালনে ব্যর্থ হয়েছে তা নিয়ে কোনো বিতর্ক নেই। পুলিশ ও প্রশাসন অনেক ক্ষেত্রে নির্বাচন সম্পর্কিত নিয়মনীতি লঙ্ঘনের অংশীদার ছিল।

অথচ রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করায় সব জেলা প্রশাসককে (ডিসি) ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানিয়ে চিঠি পাঠান মন্ত্রিপরিষদ সচিব। এ ছাড়া নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ স্বাক্ষরিত আলাদা এক চিঠিতেও এসব কর্মকর্তাকে অভিনন্দন জানানো হয়। বিতর্কিত নির্বাচনের পর চলতি বছরের ৭ জানুয়ারি টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। ২৪ জন মন্ত্রী, ১৯ জন প্রতিমন্ত্রী ও ৩ জন উপমন্ত্রী নিয়ে গঠন করা হয় নতুন মন্ত্রিসভা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে ছয় মন্ত্রণালয় রাখা হয়।

মন্ত্রিসভা গঠনের প্রায় সাড়ে চার মাসের মাথায় ১৯ মে তা পুনর্বিন্যাস করা হয়। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ডা: মুরাদ হাসানকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী করা হয়। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারকে একই মন্ত্রণালয়ের ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের মন্ত্রী করা হয়। আগে তিনি এই মন্ত্রণালয়য়ের দু’টি বিভাগের মন্ত্রী ছিলেন। কিন্তু পুনর্বিন্যাস করায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ওপর মোস্তাফা জব্বার নিয়ন্ত্রণ হারান।

এ ছাড়া স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের অধীন স্থানীয় সরকার বিভাগের মন্ত্রী করা হয় তাজুল ইসলামকে। তাজুল ইসলামকে আগে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও স্বপন ভট্টাচার্যকে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। একই মন্ত্রণালয়ের পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান স্বপন ভট্টাচার্য।
পরে ১৩ জুলাই মন্ত্রী হিসেবে ইমরান আহমদকে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেয়া হয়।

তিনি আগে এই মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। ওই দিন ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরাকে দেয়া হয় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব। মন্ত্রিসভায় এখন ২৫ জন মন্ত্রী, ১৯ জন প্রতিমন্ত্রী ও তিনজন উপমন্ত্রী রয়েছেন। নতুন সরকার গঠনের পর এই বছরের ১৬ জুন প্রথমবারের মতো বড় ধরনের পদোন্নতি হয় প্রশাসনে। ওই দিন জনপ্রশাসনে ১৩৬ জন উপসচিবকে যুগ্মসচিব করা হয়। গত ১১ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন নতুন সরকার ক্ষমতায় আসার পর প্রশাসনে এটাই প্রথম বড় ধরনের পদোন্নতি।

যুগ্মসচিবের পর গত ২৩ অক্টোবর প্রশাসনে অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতি দেয় সরকার। ওই দিন ১৫৬ জন যুগ্মসচিবকে অতিরিক্ত সচিব হিসেবে পদোন্নতি দিয়ে আদেশ জারি করা হয়। ২০১৯ সালে প্রশাসনে ৩৪ জন কর্মকর্তাকে সচিব করা হয়। সিনিয়র সচিবের মর্যাদা দেয়া হয় ২২ জন কর্মকর্তাকে।

ভারপ্রাপ্ত সচিবের অবসান : প্রচলিত রেওয়াজ অনুযায়ী সরকার অতিরিক্ত সচিব থেকে কাউকে সচিব পদে পদোন্নতি দিলে প্রথমেই ভারপ্রাপ্ত সচিব হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। এই পদে ছয় মাস কাজ করার পর ভারপ্রাপ্ত সচিবকে ভারমুক্ত করে সচিব হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়; যা দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। সরকারের ১৯৯৬ সালের রুলস অব বিজনেসের ২ এর (ঞ) তে আছে সচিব অর্থে বুঝানো হয়েছে সচিবের (ইনক্লুডিং ভারপ্রাপ্ত সচিব) কথা।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অতিরিক্ত সচিবদের ভারপ্রাপ্ত সচিব হিসেবে নিয়োগ না দিয়ে সরাসরি সচিব হিসেবে নিয়োগ দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেন। এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে এসএসবি বৈঠকের প্রয়োজন হয়। এই অবস্থায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে গত ২১ জুলাই এসএসবির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

ডিসির আপত্তিকর ভিডিও ভাইরাল : গত আগস্ট মাসের শেষের দিকে জামালপুরের তৎকালীন জেলা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীরের একটি আপত্তিকর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। ভিডিওটিতে ডিসি আহমেদ কবীরের সাথে তার অফিসের এক নারীকর্মীকে অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখা যায়। এতে সমালোচনার মুখে বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে প্রশাসন। এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে ২৫ আগস্ট আহমেদ কবীরকে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করে আদেশ জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। ওই দিনই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্মসচিব (জেলা ও মাঠ প্রশাসন অধিশাখা) মুশফিকুর রহমানকে আহ্বায়ক করে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটি ২২ সেপ্টেম্বর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন জমা দেয়। পরে ২৫ সেপ্টেম্বর আহমেদ কবীরকে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

ইউএনওর নারী কেলেঙ্কারি : মাঠ প্রশাসনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আসিফ ইমতিয়াজের নারী কেলেঙ্কারির ঘটনাটি সামনে আসে। বছরের মাঝামাঝি সুনামগঞ্জের হাওর উপজেলা তাহিরপুরে যোগদান করা বিতর্কিত ইউএনও আসিফ ইমতিয়াজকে নিয়ে বিব্রত হয় প্রশাসন। চট্টগ্রামে কাজ করার সময় জেলা প্রশাসকের কাছে আসিফ ইমতিয়াজের বিরুদ্ধে বিচার চান তার বান্ধবী দাবি করা এক তরুণী। পরে সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে উপজেলা ইউএনও হিসেবে তাকে বদলি করা হয়। তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় ৫ সেপ্টেম্বর তাকে ইউএনওর পদ থেকেও সরিয়ে দেয়া হয়। বর্তমানে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা চলমান রয়েছে।

ডিসির বিরুদ্ধে বান্ধবীর ভিডিও বার্তা : গত অক্টোবর মাসে এক নারীর সাথে দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মাহমুদুল আলমের অনৈতিক সম্পর্কে জড়ানোর অভিযোগ ওঠে। ওই সময় এক ভিডিও বার্তায় ডিসির সাথে নিজের অনৈতিক সম্পর্কের তথ্য ফাঁস করেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান একজন নারী। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে ভিডিওটি। ভিডিও বার্তায় ওই নারী জানান, নানা প্রলোভন দেখিয়ে তার সাথে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলেন ডিসি মাহমুদুল আলম। এতে তার সংসারও ভেঙে যায়।

ফেরি আটকে তিতাসের মৃত্যু : গত ২৫ জুলাই রাতে একজন ভিআইপির জন্য প্রায় ৩ ঘণ্টা অপেক্ষায় থাকায় আটকে পড়া অ্যাম্বুলেন্সে কিশোর তিতাসের মৃত্যুর অভিযোগ ওঠে। মাদারীপুরের জেলা প্রশাসকের বার্তার পরিপ্রেক্ষিতে ওই ভিআইপির (সরকারের এটুআই প্রকল্পের স্পেশালিস্ট যুগ্মসচিব আবদুস সবুর মণ্ডল) জন্য ফেরিটি আটকে রাখা হয়। কিশোর তিতাসের মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত করে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি)।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ভিআইপি কর্তৃক প্রদত্ত লোকেশন সঠিক ছিল না। ভিআইপি রওনা দেয়ার সময় থেকে ঘাট পর্যন্ত আসতে সময়ে সময়ে দেয়া লোকেশন অনুযায়ী যে সময় লাগার কথা তার চেয়ে বেশি বিলম্বে ঘাটে পৌঁছেন। ভিআইপি তার দেয়া লোকেশন অনুযায়ী সঠিক সময়ে ঘাটে পৌঁছলে অনেক আগেই ফেরি ঘাট ছেড়ে যেত। এতে মুমূর্ষু রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্সটি হয়তো নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছতে পারত। এর উল্টো প্রতিবেদন দিয়েছে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের গঠিত তদন্ত কমিটি। তাদের প্রতিবেদনে মাদারীপুর কাঁঠালবাড়ি ফেরিঘাটে স্কুলছাত্র তিতাস ঘোষের মৃত্যুর ঘটনায় সেই যুগ্মসচিব আবদুস সবুর মণ্ডল ও মাদারীপুর জেলার ডিসিরও কোনো দায় খুঁজে পায়নি তদন্ত কমিটি।

ইউএনওর ফেসবুক স্ট্যাটাস ভাইরাল : চলতি বছরের ৪ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোসনে আরা বেগম বীনাকে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করে আদেশ জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এরপর গত ৯ ফেব্রুয়ারি ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন হোসনে আরা। স্ট্যাটাসে তিনি সন্তানসম্ভবা হওয়ার পর একজন বিশেষ কর্মকর্তা তাকে অযোগ্য হিসেবে উপস্থাপন করে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা থেকে বদলির পাঁয়তারা করেন বলে দাবি করেন।

তার সন্তান প্রসবের সম্ভাব্য তারিখ ছিল এপ্রিলের ২০ তারিখ, কিন্তু ওএসডি হওয়ার খবর শুনে প্রচণ্ড মানসিক চাপে ফুসফুসে ব্লাড সার্কুলেশন অস্বাভাবিকভাবে কমে যায়, ফলে পেটের সন্তানের অক্সিজেন সাপ্লাই বন্ধ হয়ে যায়। ৫ ফেব্রুয়ারি তার ৩১ সপ্তাহ বয়সী প্রি-ম্যাচিউর সন্তান সিজার করে বের করে ফেলা হয়। তার এই স্ট্যাটাস প্রশাসনসহ বিভিন্ন মহলে তুমুল আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দেয়।

পরে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়, কাজের চাপে নারায়ণগঞ্জের সন্তানসম্ভবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হোসনে আরা বেগম বীনার অসুস্থতা আরো বাড়তে পারে সেজন্য তাকে ওএসডি করা হয়। সরকারি চাকরি আইন কার্যকর : অবশেষে বহু প্রতীক্ষিত সরকারি চাকরি আইন, ২০১৮ এই বছরের ১ অক্টোবর থেকে কার্যকর হয়। ২০১৮ সালের ১৪ নভেম্বর সরকারি চাকরি আইনের গেজেট প্রকাশিত হয়। যদিও আইনের কয়েকটি ধারা নিয়ে বিভিন্ন মহলের আপত্তি রয়েছে।নয়া দিগন্ত

Check Also

তরুণ কবি আহমদ বাসিরের ইন্তিকালে গভীর শোক প্রকাশ

তরুণ কবি আহমদ বাসির ১৮ নভেম্বর রাত ৯টায় হৃদরোগে আক্রান্ত হলে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *