Breaking News

যুক্তরাজ্যে বিএনপির অব্যাহত বিক্ষোভের মুখে শেখ হাসিনাঃ আওয়ামী লীগের অভ্যর্থনা

স্টাফ রিপোর্টারঃ   জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লন্ডনে অবস্থানের প্রতিবাদে বরাবরের মতো এবারো বিক্ষোভ করছে যুক্তরাজ্য বিএনপি। শনিবার দ্বিতীয় দিনে দুপুর ১২.৩০ টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত সেন্ট্রাল লন্ডনের হোটেল ক্লারিজের সামনে বিক্ষোভ করে যুক্তরাজ্য বিএনপির নেতাকর্মীরা। এদিকে শেখ হাসিনার লন্ডন সফর উপলক্ষে যুক্তরাজস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনারসহ যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের বিভিন্নস্তরের নেতৃবৃন্দ হিথ্রো বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানান।

বিএনপির বিক্ষোভে নেতৃত্ব দেন যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালিক ও সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমেদ। ‘যেখানে হাসিনা সেখানে প্রতিরোধ‘ কর্মসূচীর অংশ হিসাবে এ বিক্ষোভ সমাবেশ  অব্যাহত রেখেছে তারা। গত শুক্রবার বিকালে লন্ডনের হিথরো বিমান বন্দরের টার্মিনাল ফোরে প্রথম দিন প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয়। রোববার পর্যন্ত যুক্তরাজ্য বিএনপির এ বিক্ষোভ সমাবেশ অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন যুক্তরাজ্য বিএনপির দপ্তর সম্পাদক নাজমুল হাসান জাহিদ। শনিবারের বিক্ষোভে  যুক্তরাজ্য বিএনপি, ইউরোপের বিভিন্ন দেশের বিএনপির নেতৃবৃন্দ, যুক্তরাজ্য বিএনপির জোনাল কমিটি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীসহ প্রবাসী কমিউনিটির শত শত নাগরিক এবং যুক্তরাজ্যে অধ্যয়নরত ছাত্রছাত্রীরা ‘ফিরে যাও শেখ হাসিনা, স্টেপ ডাউন শেখ হাসিনা’ ডিক্টেটর শেখ হাসিনা’ বলে স্লোগান দিচ্ছিল। এসময় তাদের হাতে ছিল নানান স্লোগান সম্বলিত প্লেকার্ড, গুম ও খুন হওয়া নেতাকর্মীদের ছবি, বাংলাদেশে নির্যাতিত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ছবি এবং ফ্রি খালেদা জিয়া সম্ভলিত প্লেকার্ড । বিক্ষোভ সমাবেশ অংশগ্রহণকারী নেতাকর্মীরা জানান, শেখ হাসিনার সরকার অনির্বাচিত সরকার। তিনি জনগনের ভোটে নির্বাচিত নন । তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপির চেয়ারপার্সন  বেগম খালেদা জিয়াকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখতে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যেই অবৈধ সরকার তাকে অন্যায় ভাবে বন্দি করে রেখেছে । এছাড়া বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের উপর ষড়যন্ত্রমুলক রাজনৈতিক মিথ্যা মামলা দায়েরের মাধ্যমে হয়রানি করছে। তাই ব্রিটেনের মত গণতান্ত্রিক দেশে ভোট ও ব্যাংক ডাকাত এবং আন্তর্জাতিক স্বীকৃত স্বৈরাচারের পদচারনায় কুলসিত হতে দেয়া যায় না ।

দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া উপেক্ষা করে নেতাকর্মীরা ব্যানার ও ফেষ্টুন নিয়ে স্লোগানে স্লোগানে হোটেলের আশে পাশের এলাকা প্রকম্পিত করে তুলে। এ সময় নো মোর হাসিনা, গো ব্যাক হাসিনা, স্টপ কিলিং হাসিনা , ফ্রি ফ্রি খালেদা জিয়া, সেভ বাংলাদেশ, রিস্টোর ডেমোক্রেসি ইত্যাদি শ্লোগান সম্বলিত ব্যনার, প্ল্যাকার্ড ও কালো পতাকা পদর্শন করে বিএনপির নেতা কর্মীরা।  যেখানেই হাসিনা সেখানেই প্রতিরোধ কর্মসূচী  যুক্তরাজ্য বিএনপির সরকার বিরোধী আন্দোলনে নতুন মাত্রা সংযোজন করা হয়েছে।  আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যমেও এই বিক্ষোভ সমাবেশ ও প্রতিবাদের খবর ফলাও করে প্রচার করছে। প্রথম দিনের বিক্ষোভে কিছুটা ব্যাকফুটে ছিল যুক্তরাজ্য বিএনপি। হিথরো বিমানবন্দরে বিক্ষোভ করলেও দলটির একটি অংশ নেতাকর্মী শেখ হাসিনার হোটেলের সামনে জড়ো হন। সেখানে আওয়ামী লীগের বড় শোডাউন থাকায় বিএনপির ২৫/৩০ জনের জমায়েতে কিছুটা ভীতি লক্ষ্য করা যায়। আওয়ামী লীগের হামলার ভয়ে কিছু নেতাকর্মী দ্রুত স্থান ত্যাগ করেন।  পরিস্থিতি বিপদজনক হওয়ায় অনেক নেতা কর্মী চলে যায়। তবে হোটেলের সামনেই অবস্থান নিয়ে যুক্তরাজ্য বিএনপির যুক্তরাজ্য বিএনপির সাবেক সহসভাপতি আবুল কালাম আজাদ, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক নাসিম আহমেদ চৌধুরী, যুক্তরাজ্য যুবদলের সাবেক সভাপতি নিয়াজ আহমেদ চৌধুরী ,মুজিবুর রহমান মুজিব,কামাল উদ্দিন,খসরুজ্জামান খসরু, মহিলা দলের আহবায়ক  অঞ্জনা আলম,যুক্তরাজ্য যুবদলের সভাপতি রহিম উদ্দিন,সেক্রেটারি আফজাল হোসেন,যুবদল নেতা আবু জাফর আব্দুল্লাহ, ইস্ট লন্ডন বিএনপি নেতা মহম্মদ হোসাইনসহ কয়েকশত নেতা কর্মী এই বিক্ষোভে উপস্থিত ছিলেন।  এদিকে শনিবারের বিক্ষোভে বিএনপি নেতাকর্মীদের জমায়েত কিছুটা বড় হলেও তাদের মধ্যে ভীতি লক্ষ্য করা গেছে। সাংবাদিকরা ছবি তুলতে এলেই অনেককে হাত দিয়ে মুখ ঢেকে রাখতে দেখা গেছে।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিমান বন্দর থেকে সরাসরি সেন্ট্রাল লন্ডনের তাজ হোটেলে চলে যান। যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের  সিনিয়র নেতারা সেখানে প্রধানমন্ত্রীর সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন । প্রধানমন্ত্রীর সাথে সৌজন্য সাক্ষাত শেষে যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের সেক্রেটারি সায়েদ সাজেদুর রহমান ফারুক বলেন, প্রধানমন্ত্রী মুজিববর্ষ উপলক্ষে নেতা কর্মীদের স্বতস্ফুর্তভাবে কাজ করার আহবান জানিয়েছেন । প্রধানমন্ত্রীর এই সফর উপলক্ষে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ এবং সেক্রেটারি সায়েদ সাজেদুর রহমান ফারুকের নেতৃত্বে এক সংবর্ধনার আয়োজন করা হয় ।এসময় আওয়ামীলীগ এর অন্যান্য নেতারা সেখানে উপস্থিত ছিলেন ।

Check Also

Amnesty and HRW urge Bangladesh to immediate release Mir Ahmad, Amaan Azmi

Two human rights organizations – Amnesty International and Human Rights Watch – have urged Bangladesh …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *